দেশ ও মানুষের কথা বলে

[vc_row][vc_column]

[/vc_column][/vc_row]

কালাইয়ে নকল স্বর্ণের মূর্তি বিক্রি, গ্রেপ্তার- ১

ডিসেম্বর, ০৪,২০২২

ফারহানা আক্তার,জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃ

জয়পুরহাটের কালাইয়ে প্রতারণার মাধ্যমে নকল স্বর্ণের মূর্তি বিক্রির অভিযোগে এক প্রতারককে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটেলিয়ন (র‌্যাব)।
শনিবার (৩ ডিসেম্বর) বিকেল ৪টা ৪৫মিনিটে উপজেলার মালটিয়া এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তাকে গ্রেপ্তর করে র‌্যাব-৫, সিপিসি-৩ জয়পুরহাট ক্যাম্প। জয়পুরহাট র‌্যাব ক্যাম্পের ভারপ্রাপ্ত কোম্পানি অধিনায়ক সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার মোঃ মাসুদ রানা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।
গ্রেপ্তারকৃত প্রতারক হলো-উপজেলার উদয়পুর ইউনিয়নের মালটিয়া গ্রামের মৃত-আফতাব হোসেনের ছেলে মো. আলম মিয়া ওরফে আলমগীর (৪২)।
প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে র‌্যাব জানায়, প্রতারণার শিকার শ্রী বিল্পব দাস (৪৪) অভিযোগ করেন, কালাই থানাধীন নুনুজ বাজারের চায়ের দোকানে প্রতারকের সাথে পরিচয় হয়। এই সময় ভুক্তভোগীর সাথে মোবাইল নম্বর আদান প্রদানের মাধ্যমে প্রতারক ভুক্তভোগীর সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়ে তোলে। পরবর্তীতে প্রতারক ভুক্তভোগীকে ফোন দিয়ে জানায় যে, তার এক আত্মীয় পুকুর খনন করতে গিয়ে একটি স্বর্ণের বৌদ্ধ মূর্তি পেয়েছে, যার দাম প্রায় ১০ লক্ষ টাকা এবং ভুক্তভোগীর নিকট অল্প দামে বিক্রয় করার প্রস্তাব দেয়।
ভুক্তভোগী সরল বিশ্বাসে বিবাদীর নিকট হতে ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে স্বর্ণের মূর্তি ক্রয় করেন এবং পরবর্তী ভুক্তভোগী স্বর্ণকারের দোকানে মূর্তি পরীক্ষা করালে স্বর্ণকার তাকে জানায় যে, এটার মধ্যে স্বর্ণের কোন অস্তিত্ব নাই।
এমতাবস্থায় ভূক্তভোগী গত বৃহস্পতিবার (০১ ডিসেম্বর) অনুমান সারে ৩টায় নকল স্বর্ণের বৌদ্ধ মূর্তিটি নিয়ে তার দেওয়া ৫০ হাজার টাকা ফেরত চাইলে প্রতারক চক্রের সদস্যরা ভূক্তভোগীকে বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি প্রদর্শন সহ মেরে ফেলার হুমকি দিলে ভূক্তভোগী জীবন রক্ষার্থে সেখান থেকে পালিয়ে আসে।
এ বিষয়ে ভূক্তভোগী শ্রী বিল্পব দাস জয়পুরহাট র‌্যাব ক্যাম্পে অভিযোগ দায়ের করলে শনিবার বিকেলে র‌্যাব ক্যাম্পের একটি আভিযানিক দল কালাই থানাধীন মালটিয়া গ্রাম এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে নকল স্বর্ণের বৌদ্ধ মূর্তি বিক্রির সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের মুলহোতাকে গ্রে্প্তার করে এবং এই প্রতারক চক্রের অজ্ঞাত ৩/৪ জন সদস্য র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায় ও নকল মূর্তিটি উদ্ধার করে।
পরবর্তীতে গ্রেপ্তারকৃত আলম মিয়া ওরফে আলমগীরকে সাক্ষীদের সম্মুখে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, সে একটি সংঘবদ্ধ প্রতারক চক্রের মূলহোতা। সে এবং তার সদস্যরা দেশের বিভিন্ন এলাকার লোকজনকে মিথ্যা প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন লোকের নিকট হতে সোনালী রংয়ের স্বর্ণের মূূর্তি বলে বিশ্বাস করিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ গ্রহণ পূর্বক কথিত স্বর্ণের মূর্তি প্রদান করে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। এ বিষয়ে ধৃত আসামীর বিরুদ্ধে জয়পুরহাট জেলার কালাই থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

www.bbcsangbad24.com

Leave A Reply

Your email address will not be published.