জানুয়ারী,২৭,২০২১

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি :

মুন্সীগঞ্জের টংগীবাড়ি উপজেলার জশলং ইউপির ৯ নং ওয়ার্ড পুরাবাজার সংলগ্ন প্রভাবশালী মৃত রশিদ খাঁর ছেলে সাইফুল খাঁ (৪০) ও মামুন খাঁ (৩৪) ক্ষমতার প্রভাব কাটিয়ে সরকারী অনুমতি ছাড়াই বহুতল ভবন নির্মান করিতেছে। কোন রকম সরকারী ইঞ্জিনিয়ার দ্বারা প্লানিং বা ফাউন্ডেশন ছাড়াই বহুতল ভবন নির্মান করছে।

যে কোন মূহত্বে ধসে পড়ার সম্ভাবনাই শতভাগ এমনটাই মনে করছেন এলাকাবাসি। তারা জানান এই ভবনটি সম্পন্ন ঝুঁকিপর্ণ এবং রাস্তা ও আশে পাশের বাড়ির উপরে ধসে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

ঝুঁকিপুর্নভাবে যাতে ভবন নির্মাণ না করে সে জন‌্য এলাকাবাসি অনেকবার বাঁধা দিয়েছেন তাদেরকে কিন্তু তারা বাঁধার তোয়াক্কা না করে দিব‌্যি ভবনের কাজ করে যাচ্ছেন এবং পর্যায়ক্রমে ৪তলা ভবন উটিয়েছে।

সরেজমিনে জানাযায়,যে উক্ত প্রভাবশালী ব‌্যক্তিগন মোল্লাকান্দি ইউনিয়নের ঢালীকান্দি গ্রামের স্থায়ী বাসিন্দা। তারা ২০১৯ সালের শেষের দিকে পুরা গ্রামের মৃত আ: রশিদ মোল্লার ছেলে মো: জেদ্দাল মোল্লার নিকট থেকে ৭ শতাংশ জমি ক্রয় করে এবং অনেকাংশ জমি জবর দখল করে সেখানে সরকারী অনুমতি ছাড়া বহুতল ভবন নির্মান করছে।

এব‌্যাপারে পাশ্ববর্তি অংশে একতলা ভবন এর মালিক জেদ্দাল মোল্লার ভবনটি সম্পন্ন ঝুঁকিপুর্ণ। তিনি অনেকবার ঐ প্রভাবশালী সাইফুল খাঁকে কাজ বন্ধ করে সরকারী অনুমতি নিয়ে ভবন করার কথা বললে তিনি তাকে মারধর করার প্রস্তুতি নিলে তিনি মুন্সীগঞ্জ নির্বাহী ম‌্যাজিস্ট্রেট কোর্টে একটি পিটিশন মামলা করেন যাহা মামলা নং ৪০০/২০২০ ফৌ: কা: বি: ১৩৩/১০৭/১১৭ (সি) ধারা আইনে।

অভিযোগের আলোকে জেলা ম‌্যাজিস্ট্রেট আদালত টংগীবাড়ি উপজেলা প্রকৌশলী বরাবর ও ওসি টংগীবাড়িকে সরেজমিনে গিয়ে তদন্তক্রমে তদন্ত রিপোর্ট পেশ করার নির্দেশ দেন।

এব‌্যাপারে টংগীবাড়ি উপজেলা প্রকৌশলী কর্মকর্তা শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, আমাদের টংগীবাড়ি উপজেলা পরিষদ কমিটির কেউ জানেনা বা আমাদের কাছ থেকে কোন রকম অনুমতি নেয়নি । আমি জেলা নির্বাহী ম‌্যাজিস্ট্রেট হইতে একটি চিটি পেয়েছি উপজেলা ভুমি কর্মকর্তাসহ সরেজমিনে গিয়ে তদন্তক্রমে তদন্ত প্রতিবেদন পাঠাব।

www.bbcsangbad24.com

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here