ফেব্রুয়ারী,২৫,২০২১

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি: 

মুন্সীগঞ্জের সিরাজদীখানে ২ সন্তানসহ এক গৃহবধুকে মারধর করে বাড়ি থেকে বের করে দেয় স্বামী।

জানাযায়, ২০১৫ ইং সালের ফেব্রুয়ারী মাসের ৪ তারিখে ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক গ্রাম‌্য মসজিদের হুজুর দারা বিয়ে করে খাসনগর গ্রামের মৃত ইসমাইল হোসেন এর মেয়ে উম্মে হানি ২৩ কে একই উপজেলার আকবর নগর গ্রামের ইসমাইল হোসেন গলিয়ার ছেলে রিয়াজুল গলিয়া (৪০) বিয়ের সময় ২ লক্ষ টাকা দেন মোহর ধার্য করিয়া । উল্লেখ‌্য থাকে পরে কাবিন করিবে। কিন্ত কোন কাবিন না করিয়া তাসিন (৬) ও তওসিফ (৭ মাস) কে জন্ম দেয়।

বিগত একবছর যাবৎ উম্মে হানির স্বামী রিয়াজুল গলিয়া তার সাথে যোগাযোগ বন্ধ করে দিয়ে তার আগের স্ত্রী সাথীর সাথে সংসারবাস করছে। আর এদিকে উম্মে হানি তার ২ সন্তান নিয়ে অতিকষ্ঠে দিন যাপন করছে।

রিয়াজুল গালিয়া স্থানীয় মেম্বার আফজাল হোসেন দারা তাকে শারীরিক ও পাশবিক নির্যাতন করায়। নিরুপায় হয়ে উম্মে হানি মুন্সীগঞ্জ বিজ্ঞ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ আদালত এ পিটিশন মামলা দায়ের করেন যাহা নং ২৬২/২০২০,ধারা, ২০০০ সনের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইন ( সং/০৩) এর ১১ (খ)/৩০

উক্ত মামলার অভিযুক্ত আসামীরা হল, রিয়াজুল গলিয়া(৪০) পিতা নুর মোহাম্মদ গলিয়া, সাথী বেগম (৩৫) স্বামী রিয়াজুল গলিব,নুরী বেগম (৫৮) স্বামী নুর মোহাম্মদ, আব্দুল জলিল (৪৫) পিতা মৃত লালু মিয়া সর্ব সাং আকবর নগর,সিরাজদীখান,মুন্সীগঞ্জ।

উম্মে হানি বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়াল ম‌্যাজিস্ট্রেট ২নং আমলী আদালত ও একটি সি আর মামলা দায়ের করেন ২০১৮ সালের যৌতুক নিরোধ আইনের ৩ ধারায়। বর্তমানে ঐ মামলায় আসামীগন হলফ নামায় সই করে ভরনপুষন দিবে বলে জামিন নেয়।

কিন্ত জামিনের পর বাদীনিকে বেদম প্রহার করে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। বর্তমানে বাদীনি উম্মে হানি ২ সন্তান নিয়ে বিচারের বানী নিয়ে মানুষের দারে দারে ঘুরে বেড়াচ্ছে এবং অন‌্যের আশ্রয়ে থেকে জীবনযাপন করছে।

উম্মে হানি বলেন, আমি কি ন‌্যায় বিচার পাবনা, কেউ কি নেই যে আমাকে ন‌্যায় বিচার পাইয়ে বিবে বলেই কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

www.bbcsangbad24.com