মার্চ,০৮,২০২১
“শাহানা নাসরিন রেখা”
বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ ছিল একটি অগ্নিশলাকা যা প্রজ্জ্বলিত করেছিল মুক্তিযুদ্ধের ঐ দাবানলের যার সামনে টিকতে পারেনি শক্তিশালী পাকিস্তানী সেনাবাহিনী এবং তাদের এ দেশীয় সহযোগিরা। ১৯৭১-এর ৭ই মার্চ থেকে ২৫শে মার্চ এই ১৮ দিনে এই ভাষণ বাংলাদেশের সাত কোটি মানুষকে প্রস্তুত করেছে মুক্তির সংগ্রামে – স্বাধীনতার সংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়তে। জন রীড রচিত বিশ্বখ্যাত “Days that shook the world” – যে ক’টি দিনে রাশিয়ায় মহামতি লেলিনের নেতৃ্ত্বে অক্টোবর বিপ্লবের মধ্যদিয়ে সমাজতান্ত্রিক সোভিয়েত ইউনিয়ন প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, তার চাইতে কম গুরুত্বপূর্ণ ছিল না বাঙালির কাছে ঐ ১৮ দিন। বঙ্গবন্ধুর কাছ থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীনতার ঘোষণাটি এসেছিল ২৬শে মার্চের প্রথম প্রহরে। তার অব্যবহিত পূর্বে ২৫শে মার্চের কালরাতে নারকীয় গণহত্যা মিশন “অপারেশন সার্চ লাইট” নিয়ে বাঙালিদের উপর ঝাঁপিয়ে পড়েছিল জেনারেল টিক্কা খানের পাকিস্তানী সেনাবাহিনী।
১৯৭১ সালের মার্চ মাসের প্রথম সপ্তাহের ঘটনাবলির দিকে তাকালেই ৭ই মার্চে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেয়া ঐতিহাসিক ভাষণের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটটি বোঝা যাবে। ১৯৭১ সালের ১লা মার্চ তারিখে পাকিস্তানের প্রেসিডেন্ট ও সামরিক শাসক জেনারেল ইয়াহিয়া খান বেতারে জাতির উদ্দেশ্যে একটি ঘোষণা দেন। ঘোষণার মর্মকথা ছিল একটাই: পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের অধিবেশন স্থগিত করা। ইয়াহিয়া খানের এমন ঘোষণার প্রেক্ষাপটটি ছিল এমন: ১৯৭০ সালে পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে কেন্দ্রীয় সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজন ছিল ১৫১টি আসন। সেই নির্বাচনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আওয়ামী লীগ পাকিস্তানের ৩৮.৩% মানুষের সমর্থন নিয়ে ৩০০ আসনের মধ্যে ১৬০টি আসনে জয়লাভ করে। অন্যদিকে জুলফিকার আলী ভুট্টোর পাকিস্তান পিপলস পার্টি ১৯.৫% ভোট জনসমর্থন নিয়ে জয়লাভ করে ৮১টি আসনে। জাতীয় পরিষদে আওয়ামী লীগের পরিষ্কার সংখ্যাধিক্য থাকা সত্ত্বেও ইয়াহিয়া খান জুলফিকার আলী ভুট্টোর ইচ্ছাকেই প্রাধান্য দেন। তার প্রতিফলন ঘটে তার ১লা মার্চের ঘোষণায়। তিনি বলেন :
“The position briefly is that the major party of West Pakistan, namely, the Pakistan People’s Party, as well as certain other political parties, have declared their intenton not to attend the National Assembly session on the third of March, 1971. In addition, the general situation of tension created by India has further complicted the whole position. I have, therefore, decided to postpone the summoning of the National Assembly to a later date”
ইয়াহিয়া খানের এই সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর কারণ অনুসন্ধান করলে, ইসলামী পাকিস্তান রাষ্ট্রের অখন্ডতা রক্ষা থেকে শুরু করে ভারতীয় জুজুর ভয়সহ অনেক কারণই খুঁজে পাওয়া যাবে। তবে একটি অন্তর্নিহিত কারণ যা পাকিস্তানি শাসকেরা সচরাচর স্বীকার করতেন না, তা ছিল প্রধানত বাঙালি মুসলমানদের প্রতি তাদের মজ্জাগত ‘অশ্রদ্ধাবোধ’। বাঙালি গানের মিষ্টি সুরের প্রশংসা করলেও মোহাম্মদ আইয়ুব খান হয়তো কিছুটা অসাবধানতাবশত তার ‘ফ্রেন্ডস নট মাস্টার্স’ বইতে বাঙালিদের সম্পর্কে বলেন:
“[…] It would be no exaggeration to say that up to the creation of Pakistan, they had not known any real freedom or sovereignty. They have been in turn ruled either by the caste Hindus, Moghuls, Pathans, or the British. In addition, they have been and still are under considerable Hindu cultural and linguistic influence. As such they have all the inhibitions of down-trodden races and have not yet found it possible to adjust psychologically to the requirements of the new-born freedom. Their popular complexes, exclusiveness, suspiscion and a sort of defensive aggresiveness probably emerge from this historical background.”
এ কথাগুলো নতুন করে তুলে ধরার উদ্দেশ্য একটাই। সকলকে আবারো মনে করিয়ে দেওয়া যে, ১লা মার্চ ১৯৭১ সালে ফিল্ড মার্শাল মোহাম্মদ আইয়ুব খানের মনোজগতের সাথে তার উত্তরসুরী জেনারেল ইয়াহিয়া খানের মনের ভাবনার কোন অমিল ছিল না। জাতীয় পরিষদের অধিবেশন ডাকলে পাকিস্তানী শাসকদের চোখে ‘down-trodden’, স্বাধীনতার মূল্য উপলব্ধি করতে মনস্তাত্বিকভাবে প্রস্তুত নয় এমন বাঙালিদের হাতে ক্ষমতা চলে যেত, যা মেনে নিতে ইয়াহিয়া খান ও জুলফিকার আলী ভুট্টোসহ পাকিস্তানের শাসকগোষ্ঠীর কেউই প্রস্তুত ছিল না। এমন এক পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষ এবং বিশেষ করে পূর্ব পাকিস্তানের ছাত্র সমাজ আরো আক্রমণাত্মক কর্মসূচি ঘোষণার পক্ষে থাকলেও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সারা দেশব্যাপী ধর্মঘট এবং অহিংস ও শান্তিপূর্ণ অসহযোগ আন্দোলনের আহ্বান জানান। হোটেল পূর্বানীতে অনুষ্ঠিত আওয়ামী লীগ সংসদীয় পার্টির সাংবাদিক সম্মেলনে বঙ্গবন্ধু বলেন, “এটা দুঃখজনক যে একটি সংখ্যালঘু দলের আবদার রাখতে গিয়ে জাতীয় সংসদের অধিবেশন অনির্দিষ্টকালের জন্য স্থগিত করা হয়েছে। সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হিসেবে এ অন্যায়ের প্রতিবাদ করতেই হবে।” স্বাধীনতা ঘোষণা প্রসঙ্গে বঙ্গবন্ধুকে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি সকলকে অপেক্ষা করতে বলেন। সাংবাদিক সম্মেলনে ৭ই মার্চে রেসকোর্র্স ময়দানে জনসভার ঘোষণা দেওয়ার পর তিনি একটি তাৎপর্যপূর্ণ মন্তব্য করেন, যা ছিল: “You will see history made if the conspirators fail to come to their senses.” কি আশ্চর্য, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের এই হুশিয়ারী উচ্চারণ বছর শেষ হতে না হতেই ফলে গিয়েছিল। বাংলার মানুষ ৯ মাসের এক রক্তক্ষয়ী মুক্তিযুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে এবং সেই যুদ্ধে জয়ী হয়ে পৃথিবীর বুকে একটি নতুন রাষ্ট্রের মানচিত্র আঁকতে সক্ষম হয়।
স্বাভাবিকভাবেই বাঙালিরা ইয়াহিয়া খানের বেতার ঘোষণাকে প্রত্যাখ্যান করেছিল। তারা ব্যাপক আকারে এবং স্বতঃস্ফূর্ততার সঙ্গে রাস্তায় নেমে পড়ে এবং তীব্র প্রতিবাদ জানায়। ঢাকার ফার্মগেট, এয়ারপোর্টসহ বিভিন্ন জায়গায় নিরস্ত্র মানুষের মিছিলে গুলি চালানো হয়। আবারো রক্তে রঞ্জিত হয় ঢাকার রাজপথ। আন্দোলন আর অহিংস অসহযোগে সীমাবদ্ধ থাকে না। ২রা মার্চ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলায় ছাত্রলীগের এক ঐতিহাসিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয় দুপুর ১২.৪৫ মিনিটে। সেই সমাবেশেই বাংলাদেশের পতাকা প্রথমবারের মত ছাত্র-জনতার সামনে প্রদর্শিত হয়। স্বাধীন বাংলার পতাকা তৈরির ব্যাপারেও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যে সরাসরি অংশ নিয়ে ছিলেন, আজকে তা আমরা প্রয়াত শহীদ কাজী আরেফ আহমেদের ১৯৯০ সালে এক দেয়া সাক্ষাৎকার থেকে জানতে পারি। সময় দ্রুত এগুতে থাকে। ৩রা মার্চ পল্টন ময়দানে অনুষ্ঠিত হয় ছাত্রলীগ ও শ্রমিক লীগের জনসভা। সভা থেকে পড়ে শোনানো ছাত্রলীগের প্রথম ইশতেহারে ‘দলমত নির্বিশেষে বাংলার প্রতিটি নরনারীকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নেতৃত্বে বাংলার স্বাধীনতা সংগ্রাম চালাইয়া যাওয়ার আহ্বান’ জানানো হয়। সরাসরিভাবে না হলেও সেদিন বঙ্গবন্ধুর কণ্ঠেও আমরা স্বাধীনতা অর্জনের প্রত্যয় খুঁজে পেয়েছিলাম। তিনি বলেন, “হয়তো এটাই আমার শেষ ভাষণ। আমি যদি নাও থাকি আন্দোলন যেন থেমে না থাকে। বাঙালির স্বাধীনতার আন্দোলন যাতে না থামে। ” ইয়াহিয়া খান ৬ই মার্চে বেতারে জাতির উদ্দেশ্যে দেয়া ভাষণে পাকিস্তানের সংবিধান প্রণয়ন সম্পর্কিত সমস্যার সমাধানের লক্ষে ১০ই মার্চ ঢাকায় একটি গোল টেবিল বৈঠক আয়োজনের কথা জানান এবং ২৫শে মার্চ জাতীয় পরিষদের অধিবেশন আহ্বান করেন। তবে ভাষণের শেষভাগে তিনি শেখ মুজিবুর রহমান ও স্বাধীনতাকামী বাঙালিদের প্রতি হুশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন,
“Finally let me make it absolutely clear that no matter what happens, as long as I am in command of the Pakistan armed Forces and Head of the State, I will ensure complete and absolute integrity of Pakistan. […] I will not allow a handful of people to destroy the homeland of millions of innocent Pakistanis. It is the duty of the Pakistan Armed Forces to ensure the integrity, solidarity and security of Pakistan, a duty in which they have never failed.”
ইয়াহিয়া খান তার ভাষণে এই তথ্যটি উহ্য রাখেন যে গত কয়েকদিনে পূর্ব বাংলার ঢাকা, রংপুর, চট্টগ্রাম, খুলনা, যশোরসহ অন্যান্য শহরে পাকিস্তানের ‘integrity, solidarity and security’ রক্ষার নামে পাকিস্তান সশস্র বাহিনী ইতিমধ্যেই বহু নিরপরাধ বাঙালিকে হত্যা করেছে। ইয়াহিয়া খানের ভাষণ শোনার পর বঙ্গবন্ধু অন্যান্য আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের সাথে আলোচনায় বসেন। আলোচনা শেষে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে একটি ইশতেহার প্রদান করা হয় যা তাজউদ্দিন আহমেদ তৈরি করেছিলেন। ইশতেহারের শেষাংশে বলা হয়: “শহীদদের রক্তে রঞ্জিত রাস্তার রক্ত এখনো শুকোয়নি। শহীদদের পবিত্র রক্ত পদদলিত করে ১০ই মার্চ তারিখে প্রস্তাবিত গোল টেবিল বৈঠকে আওয়ামী লীগ যোগদান করতে পারে না।”
চলে আসে ৭ই মার্চ ১৯৭১। এই দিনটিকে সেদিন যারা সচক্ষে দেখার সুযোগ পেয়েছিলেন, সেটি ছিল তাদের জন্য এক পরম সৌভাগ্য। কারণ আর কখনো এমন আরেকটি দিন দেখার সুযোগ তাদের সামনে আসবে না। দু’টি পরিবারের সেইদিনকার মনের অবস্থা দেখলেই বোঝা যায় কি অধীর আগ্রহে বাঙালিরা বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণের জন্য অপেক্ষা করছিল। কি আছে শহীদ জননী জাহানারা ইমামের ৭ই মার্চের দিনলিপিতে? শহীদ জননী বলেন,
“আমি যদিও মিটিংয়ে যাব না, বাসায় বসে রেডিওতে বক্তৃতার রিলে শুনব, তবু আমাকেও এই উত্তেজনার জ্বরে ধরেছে। এর মধ্যে সুবহান আমাকে জ্বালিয়ে মারল। আজ তাড়াতাড়ি রান্না সারতে বলেছিলাম। শরীফ বলেছে বারোটার মধ্যে খাওয়া সেরে একটু বিশ্রাম নেবে। ঠিক দেড়টায় রওনা দেবে তা না হলে কাছাকাছি দাঁড়াবার জায়গা পাবে না। আর সুবহান হতচ্ছাড়াটা এগারটায় সময় গোশত পুড়িয়ে ফেলল। বারেককে দিয়েছিলাম রুমী জামীদে শার্ট ইস্ত্রী করতে। সুবহান চুলোয় গোস্ত রেখে বারেকের সঙ্গে ইস্ত্রী করতে মেতেছে। তিনিও আজ শেখ সাহেবের বক্তৃতা শুনতে যাবেন, তাই তার নিজের প্যান্ট শার্ট ইস্ত্রী তদারকিতে যখন মগ্ন, তখন গোশত গেছে পুড়ে। […] এতবড় কাণ্ড করে, এত বকা খেয়েও সুবহানের কোনো ভ্রুক্ষেপ নেই। রান্নাঘরে সব ছড়িয়ে ছিটিয়ে রেখে প্যান্ট-শার্ট পরে তিনি শরীফদের সঙ্গে চললেন শেখ সাহেবের বক্তৃতা শুনতে।”
সেদিন পান্না কায়সারের ঘরেও এক অজানা উত্তেজনা। শহীদ শহীদুল্লাহ কায়সার সেদিন তাকে বলেন, “তোমার জীবদ্দশায় এমন ভাষণ শোনার সৌভাগ্য হবে না। চল, কিছুক্ষণ থেকে চলে এসো। আমার ছেলে তার জন্মের আগেই স্বাধীনতার ঘোষণা শুনবে। তোমার জীবনে এ দিনটি স্মরণীয় হয়ে থাকবে। ” পান্না কায়সার সেদিন না বলতে পারেননি। স্বামীকে নিয়ে তিনিও চলেন পল্টন ময়দানের পথে।
৭ই মার্চের ভাষণ দেয়ার ঠিক আগের কয়েকটি ঘন্টা কেমন কেটেছিল বঙ্গবন্ধুর? বিভিন্ন বই থেকে ভাষণের পূর্ব মুহূর্তগুলোর খণ্ড খণ্ড চিত্র পাই। তবে নিঃসন্দেহে সবচাইতে নিখুত বর্ণনা আমরা পাই বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে থেকে। ২০০৪ সালে দেয়া ভাষণে শেখ হাসিনা বলেন,
“আমি আব্বার মাথার কাছে বসে আস্তে আস্তে মাথায় হাত বুলিয়ে দিচ্ছিলাম। এটা ছিল আমার রুটিন ওয়ার্ক। আমি সবসময় করতাম। ভাবতাম এটা না করতে পারলে আমার জীবন বৃথা। আব্বা যখন খাটে শুতেন, বালিশটা নামিয়ে আমার বসার জন্য একটা জায়গা করে দিতেন। আমি আব্বার মাথার কাছে বসে মাথায় হাত বুলাচ্ছিলাম। মা পাশে এসে বসলেন। বললেন, ‘আজ সারা দেশের মানুষ তোমার দিকে তাকিয়ে আছে। সামনে তোমার বাঁশের লাঠি, জনগণ আর পেছনে বন্দুক। এই মানুষদের তোমাকে বাঁচাতেও হবে – এই মানুষের আশা আকাঙ্খা পূরণ করতে হবে। অনেকে অনেক কথা বলবে – তোমার মনে যে ঠিক চিন্তাটা থাকবে – তুমি ঠিক সেই কথাটা বলবে – আর কারো কথায় কান দেবা না। তোমার নিজের চিন্তা থেকে যেটা আসবে যেভাবে আসবে – তুমি ঠিক সেইভাবে কথাটা বলবা’। এই ছোট্ট কথাটুকু মা আমার আব্বাকে ঐ সভায় যাবার আগে বলে দিয়েছিলেন। ”
এমনই একটা রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে বঙ্গবন্ধু তার ঐতিহাসিক ৭ই মার্চের ভাষণটি দিয়েছিলেন, এরপর প্রবল চাপের মুখেও পরম ধৈর্য্যে বঙ্গবন্ধু ১৮ দিনের প্রতিটি প্রহর অপেক্ষা করেছেন ২৬শে মার্চের সেই সঠিক ক্ষণটির জন্য। একজন বিচ্ছিন্নতাবাদী নেতা হিসেবে দেশের একাংশকে মূল অংশ থেকে পৃথক করবার দায়ভার নিয়ে বিশ্ব সভা ও বিশ্বজনমতের বিরোধীতার মুখে তাই পড়তে হয়নি বঙ্গবন্ধুকে। বরং নির্মম গণহত্যার শিকার একটি ভূখণ্ডের জনগোষ্ঠী যারা নিরঙ্কুশ ভোটে বঙ্গবন্ধুকে তাদের নেতা নির্বাচন করেছিল, তাদের কাছে এবং বিশ্বজনমতের কাছে ২৬শে মার্চের বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতা ঘোষণা এসেছিল আক্রান্ত, নিপীড়িত-লাঞ্চিত মানুষের সবচেয়ে ন্যায়সঙ্গত ঘোষণা হিসেবে। তাকে স্বাগত জানাতে পৃথিবীর সংখ্যাগরিষ্ঠ মানুষের আর কোন দ্বিধা রইল না। তবে ৭ই মার্চের ভাষণ এমনই স্বয়ংভূ, এমনিই তাৎপর্যপূর্ণ ছিল যে, ঐ ভাষণে করণীয় ও নির্দেশাবলী অনুসরণ করে কোন আনুষ্ঠানিক স্বাধীনতা ঘোষণার অপেক্ষা না করেই জেগে উঠা জনগণ স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। এ প্রসঙ্গে আমরা স্মরণ করবো ভাষণের সেই অমোঘ নির্দেশ,
“আর যদি একটা গুলি চলে, আর যদি আমার লোককে হত্যা করা হয়, তোমাদের কাছে আমার অনুরোধ রইল: প্রত্যেক ঘরে ঘরে দূর্গ গড়ে তোল। তোমাদের যা কিছু আছে তাই নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করতে হবে এবং জীবনের তরে রাস্তা ঘাট যা যা আছে সব কিছু, আমি যদি হুকুম দেবার নাও পারি তোমরা বন্ধ করে দেবে। ”
একটা গুলি নয়, গুলি বৃষ্টি, ট্যাঙ্কের গোলা, আর্টিলারী শেল, গ্রেনেড, আগুনে বোমা এবং এমনসব মারণাস্ত্র যা এদেশের মানুষ কখনও শোনেনি, তা বর্ষিত হয়েছিল নিরস্ত্র মানুষের উপর। ২৫শে মার্চের কালরাতে। তাই বঙ্গবন্ধুর ২৬শে মার্চের স্বাধীনতা ঘোষণাকে স্বকর্ণে শোনার জন্য জনগণ অপেক্ষা করেনি। ১৮ দিন ধরে ৭ই মার্চের ভাষণের প্রতিটি লাইন, প্রতিটি শব্দ, প্রতিটি নির্দেশ যা বুকের গভীরে ধারণ করেছে দেশবাসী, তাই নিয়ে শত্রুর বিরুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছে। শুধু দেশের অভ্যন্তরে নয়, বিশ্বব্যাপী যেখানেই ছিল বাঙালি, বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ শুনে সেখান থেকেই প্রতিরোধ যুদ্ধে যাবার প্রহর গুণেছে। সরাসরি রণাঙ্গনে অথবা নিজ নিজ অবস্থানে থেকেই গৌরবময় মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছে।
৭ই মার্চের বঙ্গবন্ধুর ভাষণ পুরো মুক্তিযুদ্ধকাল সময়ে মানুষকে উজ্জীবিত রেখেছে। প্রিয় নেতা সুদূর পাকিস্তান কারাগারে। বেঁচে আছেন কিনা তাও জানা নেই। কিন্তু স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে প্রচারিত ঐ অমর ভাষণ জীবন-মরণের কঠিন দুঃসময়ে এক সঞ্জিবনী সুধার মত বিপন্ন মানুষকে সজিব রেখেছে। ‘বজ্রকণ্ঠ’ – স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে প্রতিদিন প্রচারিত এই অনুষ্ঠানটি শোনার জন্য গ্রাম ও শহরের মানুষ উন্মুখ হয়ে অপেক্ষা করেছে। ‘বঙ্গবন্ধু’ নামটি হয়ে গিয়েছিল একটি রণহুঙ্কা্
www.bbcsangbad24.com