মার্চ ১২, ২০২১,

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মিয়ানমারে সেনাবিরোধী আন্দোলনে অংশ নিয়ে প্রতিদিনই মৃত্যু হচ্ছে সাধারণ মানুষের। এতে প্রতিনিয়ত মরছে নিরস্ত্র বিক্ষোভকারীরা।

এর আগে বৃহস্পতিবারও (১১ মার্চ) বিক্ষোভে অংশ নিয়ে মারা গেছেন অন্তত সাতজন। এমতাবস্থায় দেশটির সেনাবাহিনীর বিরুদ্ধে সরাসরি খুনের অভিযোগ তুলেছেন মিয়ানমারে নিযুক্ত জাতিসংঘের বিশেষ দূত থমাস অ্যান্ড্রুস।

বৃহস্পতিবার জাতিসংঘের মানবাধিকার কাউন্সিলে মিয়ানমারের পরিস্থিতি তুলে ধরতে গিয়ে তিনি বলেন, অভ্যুত্থান পরবর্তী বিক্ষোভে এখন পর্যন্ত ৭০ জনকে মেরে ফেলেছে দেশটির সেনাবাহিনী। এই ঘটনায় যারা এ পর্যন্ত  মারা গেছেন তাদের অর্ধেকেরই বয়স ২৫ বছরের নিচে।

এছাড়া অন্যায়ভাবে আটক করা হয়েছে অন্তত ২ হাজার বিক্ষোভকারীকে।

থমাস অ্যান্ড্রুস আরো বলেন, এক ভয়াবহ সত্য নিয়ে আমাদেরকে কথা বলতে হবে। মিয়ানমার শাসিত হচ্ছে একটা খুনি ও অবৈধ শাসকগোষ্ঠি দ্বারা। এমন অসংখ্য প্রমাণ আমাদের কাছে আছে, যাতে দেখা যায়, নিরস্ত্র মানুষকে নির্বিচারে পেটাচ্ছে সেনাবাহিনীর সদস্যরা।

তারা বিক্ষোভকারীদের মাথা লক্ষ্য করে গুলি চালাচ্ছে। এছাড়া বিক্ষোভকারীদের দোকানপাট লুট করছে, বাড়িঘর জ্বালিয়ে দিচ্ছে সেনাবাহিনী।

প্রসঙ্গত, গত ১ ফেব্রুয়ারি ভোরের আলো ফোটার আগেই রক্তপাতহীন অভ্যুত্থান ঘটায় মিয়ানমারের সামরিক বাহিনী। ক্ষমতাসীন দল এনএলডির নেত্রী ও স্টেট কাউন্সিলর অং সান সুচি এবং দেশটির প্রেসিডেন্টসহ শীর্ষ নেতাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। অভ্যুত্থানের পর থেকে সেনা সরকারের নেতৃত্ব দিচ্ছেন সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইং।

সূত্র: রয়টার্স

www.bbcsangbad24.com