মার্চ,২৫,২০২১

“এডভোকেট মো: আশরাফ উল ইসলাম” 

গত বছরের শুরুতেই কোভিড উনিশ এর প্রাদুর্ভাব শুরু হয় । চীনের উহান শহরে করোনা ভাইরাস ব্যপক আকারে ছড়িয়ে পড়লে সারা বিশ্বে এর ভয়াবহতা নিয়ে ঝড় উঠে । সর্বত্র সতর্কতা সাবধানতা সত্বেও ঠেকানো যায়নি ভাইরাসের বিষ বাষ্প । দ্রুতই গ্রাস করে সারা বিশ্বকে । অল্প সময়ের মধ্যে আক্রান্ত হয় লক্ষ লক্ষ মানুষ। দীর্ঘ থেকে দীর্ঘতর হয় মৃত্যুর মিছিল ।চোখের সামনে হারিয়ে যায় একান্ত প্রিয়জন । চিকিৎসা বিজ্ঞানের কোন সূত্রই কাজে লাগেনি ।মানুষ মুখ ফিরিয়ে নিতে থাকে আক্রান্ত ব্যক্তির কাছ থেকে । মৃত দেহ সৎকারের জন্য দেখা দেয় লোকের অভাব । অনেক চিকিৎসক , সেবা কর্মী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করলেও অনেক চিকিৎসক আক্রান্ত হওয়ার ভয়ে ঘর বন্দী হয়ে বসে থাকে । শুরু হয় লক ডাউন। স্হবির হয়ে পড়ে সারা বিশ্ব । বন্ধ হয়ে যায় সারা বিশ্বের সাথে যোগাযোগ । অচল হয়ে পড়ে ব্যবসা বানিজ্য ।

ঘর বন্দী মানুষ শুধুমাত্র সৃষ্টিকর্তার উপর ভরসা করে মুক্তির দিন গুনতে থাকে । দীর্ঘ সময়ের লক ডাউনে মনে হতে থাকে মানুষ ভুলে যাবে সব অনৈতিক কাজ । থেমে যাবে সারা বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশগুলির আধিপত্য বিস্তারে অস্ত্রের মহড়া.। বন্ধ হবে চীনের উইঘুরে , মিয়ানমারে মুসলীম নিধন সহ বিশ্বের বিভিন্ন স্হানে ধর্মের কারণে বর্ণের কারণে হত্যা শোষণ নির্যাতন । মানুষ দাঁড়াবে মানুষের পাশে, জয় হবে মানবতার। বন্ধ হবে ঘুষ দুর্নীতি রাহাজানী ধর্ষণ পরের সম্পদ, সম্পত্তি লুন্ঠন সহ সকল অপকর্ম ।বন্ধ হবে প্রকৃতির উপর যথেচ্ছ অত্যাচার। ফলে প্রকৃতি ফিরে পাবে তার আসল রূপ । পশু পাখি ফিরে পাবে তাদের অভয়ারণ্য । আকাশ হবে সুনীল স্বচ্ছ মেঘমুক্ত । কিন্তু দু:খের বিষয় সেই আশার আলো ক্রমশই ফিকে হতে থাকে । এক শ্রেণির মানুষ সুযোগ কাজে লাগিয়ে নিজেদের সম্পদের পাহাড় তৈরীতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে । ঔষধ , স্বাস্হ্য সামগ্রী নিয়ে শুরু হয় ব্যবসা, সয়লাব হয় নকল ও ভেজাল মিশ্রিত সামগ্রীতে । কেড়ে নেয়া হয় মানুষের সামান্য মুখের গ্রাস । বিশ্বের শক্তিধর দেশ গুলিতে বাজে নতুন করে যুদ্ধের দামামা ।ধর্মের কারণে বর্ণের কারণে মানুষের উপর চলে নির্মম হত্যাযজ্ঞ , থামেনি খুন, ধর্ষণ, লুন্ঠন , সম্পদের পাহাড় তৈরীর প্রতিযোগিতা। মানুষ ফিরতে শুরু করে তার পূর্ব রূপে । ধর্মে, কর্মে আসে শিথিলতা ।

সত্যিই আমরা বড় অকৃতজ্ঞ । আমরা মূহুর্তে ই ভুলে যাই আমাদের দায়িত্ব কর্তব্য। আল্লাহ্ তাআলা তাই পবিত্র কোরআনে স্পষ্ট করেই বলেছেন -“ নিশ্চয়ই মানুষ তার পালন কর্তার প্রতি অকৃতজ্ঞ এবং সে অবহিত। এবং সে নিশ্চিতই ধন সম্পদের ভালবাসায় মত্ত ।”(সুরা আদিয়াত-৬-৮)আল্লাহ্ আরো বলেন- নিশ্চয়ই আমি তোমাদের ভয়ভীতি ও ক্ষুধা ধনসম্পদ জীবন ও ফলন দ্বারা পরীক্ষা করবো এবং তুমি ধৈর্য্যশীলদের সুসংবাদ দাও, তারাই ধৈর্য্যশীল যাদের উপর বিপদ এলে বলে আমরাতো আল্লাহরই এবং তারই দিকে প্রতাবর্তনকারী।”(বাকারা ১৫৫-১৫৬)।

আল্লাহ্ মানুষকে বিপদ দিয়ে পরীক্ষা করেন, কিন্তু মানুষ তা উপলদ্ধি করে না । তাই কোরআনে বলা হয়েছে- আফালা তাকিলুন- তবুও কি মানুষ বুঝবে না, আফালা তাযাক্কারুণ- তবে কি তোমরা উপদেশ গ্রহণ করবেনা ।”(সুরা সফফাত)

মানুষ বিপদগ্রস্ত হলে আল্লাহকে ডাকে কিন্তু বিপদমুক্ত হলেই আল্লাহকে ভুলে যায় । কোরআনে বলা হয়েছে -“আমি যখন মানুষকে অনুগ্রহের আস্বাদ দেই – ওরা তাতে উৎফুল্ল হয় এবং কৃতকর্মের ফলে ওরা দুর্দশাগ্রস্হ হয়ে পড়ে ।”(রুম -৩৩) মানুষকে যখন দু:খ দৈন্য স্পর্শ করে তখন সে একনিষ্ঠভাবে তার রবকে ডাকে। পরে যখন তিনি তার প্রতি অনুগ্রহ করেন তখন সে তাকে বিস্মৃত হয়ে যায় যাকে সে ডেকেছিল এবং সে আল্লাহর পথ হতে অন্যকে বিভ্রান্ত করার জন্য আল্লাহর অংশী ঠিক ক করে নেয় । বল অকৃতজ্ঞ অবস্হায় তুমি কিছুকাল মজা করে নাও, বস্তুত তুমি জাহান্নামী।”(যুমার-৮)

পর্বত প্রমাণ তরংগমালা যখন ওদের ওপর ভেংগে পড়ে তখন খাঁটি নিষ্ঠায় আল্লাহকে ডাকে, কিন্তু যখন তিনি কূলে ভিডিয়ে উদ্ধার করেন তখন ওদের কেউ কেউ সরল পথে থাকে। কেবল প্রবন্চক ও অকৃজ্ঞতরাই তাঁর নিদর্শনাবলী অস্বীকার করে । “(সুরা লোকমান-৩২)

করোনা আবার শুরু হয়েছে নতুন রূপে নতুন মাত্রায়। ক্রমাগত সারা বিশ্বকে গ্রাস করছে । মানুষ নতুন করে আতংকগ্রস্ত , কিংকর্তব্যবিমূঢ.।তবুও কি আমাদের উপলদ্ধি হবে না । আল্লাহ্ আমাদের সকলকে রক্ষা করুন। আমিন।

www.bbcsangbad24.com