এপ্রিল,০২,২০২১

ফারহানা আক্তার, জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃ

করেসপন্ডেন্ট : নারায়নগঞ্জ জেলার সোনারগাঁ উপজেলার বৈদ্যের বাজার এলাকার একটি ব্রীজের নিচ থেকে অজ্ঞাত এক যুবকের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। লাশের পকেটে থাকা মোবাইল ও সীমকার্ডের সূত্র ধরে তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে অজ্ঞাত লাশের পরিচয় বের করে পুলিশ সোনারগাঁ থানা পুলিশ।

শুক্রবার পুলিশের দ্বারা ছেলের মৃত্যুর কথা শুনে লাশ আনতে যায় নিহতের পরিবার।

সোনারগাঁ থানা পুলিশ জানায়, আমরা ২৫ মার্চ অজ্ঞাত এই লাশটি উদ্ধার করি। পরে লাশটির পকেটে থাকা মোবাইল ও সীমকার্ডের সূত্র ধরে পরিচয় জানতে পারি। সে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার হাটখোলা গ্রামের আঃ রশিদের ছেলে সাগর ইসলাম (২৫)লাশের পরিচয় জানতে পেরে পাঁচবিবি থানা পুলিশকে অবগত করেছে সোনারগাঁ থানা পুলিশ।

সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মোঃ রফিকুল ইসলাম মুঠোফোনে জানান, এঘটনায় লাশের পরিচয় পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পাঁচবিবি থানা পুলিশকে অবহিত করা হয়েছে এবং এঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে থানায় একটি ইউডি মামলাও করা হয়েছে
নিহত সাগরের বাবা রশিদ বলেন, উচনা গ্রামের মৃত মজিবরের ছেলে আব্দুর রউফের মাধ্যমে উপজেলার বৃদ্ধিগ্রামের আঃ আলিম ও হরন্দা গ্রামের গোলাম রব্বানী মাষ্টারের সঙ্গেঁ পরিচয় করে দেয়। আলিম ও রব্বানী আমাকে বলেন, ৬ লক্ষ টাকা দিতে পারলে আপনার ছেলে সাগরকে প্রতিরক্ষা মন্ত্রাণলায়ে কম্পিউটার অপারেটর পদে চাকরী দেওয়া হবে। টাকা জোগাড়ের জন্য কয়েক দিন সময় নিয়ে পরে জায়গা-জমি, গরু-ছাগল ও আগের জমানো সব মিলে ৫ লক্ষ টাকা আলিম ও রব্বানীর হাতে দেই। জয়পুরহাটের রবির মাধ্যমে অফিসারকে টাকাগুলো দিবে বলেও জানায় তারা।
এরপর দালাল আলিম মুঠোফোনে আমার ছেলেকে নিয়ে বাঁকি ১ লক্ষ টাকা সহ ঢাকাতে (২৪ মার্চ) চাকরীতে যোগদান করতে যেতে বলেন। তাদের কথামত ঢাকার কালশীতে কর্ণেল মাসুদের অফিসে যাই এবং আমার নিকট থেকে বাঁকি নিয়ে বলে আপনি বাড়ি চলে যান ছেলের চাকরী হয়ে গেছে। বাড়ি ফিরে ছেলের ফোনে যোগাযোগ করতে গেলে ফোন বন্ধ পাই। আলিমকে বিষয়টি জানালে সে বলে, আপনার ছেলে ট্রেনিংয়ে আছে এজন্য ফোন বন্ধ আছে। দুদিন পরে পুলিশের মাধ্যমে জানতে পারি আমার ছেলেকে হত্যা করা হয়েছে।

এ বিষয়ে দালাল আলিমের মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিলে বন্ধ পাওয়া যায়।

অপর অভিযুক্ত দালাল রউফ মুদ্রন অযোগ্য ভাষায় কথা বলে জানান, “আমাকে প্রমান করে দেখাক, প্রয়োজনে জেলে যাব।”

এ ছাড়া অন্যান্য অভিযুক্তদের সাথে যোগাযোগ করা হলেও তারা ফোন ধরেননি।

পাঁচবিবি থানার অফিসার ইনচার্জ,পলাশ দেব জানান, ব্যাপারে সোনাগাঁ থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে।অভিযুক্ত দালালদের ব্যাপারে তদন্ত অব্যাহত রয়েছে, অভিযোগ প্রমানিত হলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

www.bbcsangbad24.com