এপ্রিল,০৩,২০২১

“মঈনউদ্দিন মনির”

কাঠ মোল্লাগন যে কোন মহামারিকে নিজেদের মত করেই ব‌‌্যাক্ষা
করে।মনস্তাত্বিক বিকারের বৈচিত্র্যময় ব‍্যবহার দেখছি আমরা।

প্রথম মহামারি করোনা ভাইরাস দেখা দিলে কোন এক ছাগল মোল্লা ওয়াজ করলেন করোনা মুসলমানদের মারবেনা,দেখে,দেখে ইহুদী মারবে।এসব নিয়ে স্বপ্নে তার সাথে করোনার কথা হয়েছে।মসজিদে দুরত্ব বজায় রাখার বিষয়টি শুরু থেকে বেশীর ভাগ হুজুরের না মানার প্রবনতা লক্ষ‍্য করা গেছে।

আমরা সবাই দেখে আসছি মোল্লাদের পরস্পরের বিভেদ মারাত্মক। সবাই সবাইকে কাফের,মুরতাদ বলে একটা অস্বস্তিকর পরিস্থিতি সৃষ্টি করছে।তাদের মননের উগ্রতা প্রকাশ পায় তাদের ব‍্যবহারে।শাসনের নামে কোমলমতী শিশুদের বেএাগাত করে মেরে ফেলা, জাতীয় সংগীত গাওয়ার চাইলে আল্লাহ্ আকবর আওয়াজ করা তাদের বেশী পছন্দ ।

মসজিদে, মাদ্রাসায় শিশুদের কি শিখানো হয় তার মনিটর করা সময়ের দাবী। তা না করা গেলে বিকলাঙ্গতা নিয়েই চলতে হবে,হচ্ছে।এই জন‍্য আমাদের ভুগতে হবে।ইসলাম ধম’কে ছাগলগন সারা বিশ্বে ফ‍্যাসিবাদী ধম’ হিসাবেই তুলে ধরছে, জ্ঞানতঃ অজ্ঞানতঃ।
করোনা ব‍্যাপ্তীর জন‍্য আমাদের সাথে, সাথে মোল্লাদের ভুমিকাই বেশী। এইতো সেদিন প্রায় পঞ্চাশ লাখ লোকের সমাগম করে চরমোনাই হুজুর প্রায় সপ্তাহ ব‍্যাপী ওয়াজ করলেন।যেখানে মানুষের এমন ঠেলাঠেলি, এত বেশী ক্লোজ ছিল যে দশ মিনিটের রাস্তা হেটে আসতে পাঁচ, ছয় ঘন্টা এমনকি একদিনও লেগে যেত।লোক মুখে এমন কথা শুনে আমি বিস্মিত হয়ে ছিলাম।

চৌষট্রি জেলা থেকে লোক জমায়েত হলো।সাতদিন গাদাগাধি, ঠেলাঠেলি অবস্থানের পর ফিরে গেল যার যার জেলায়। ছুঁয়াচে করোনা ব‍্যাপ্তী পায়নি? সরকার নিষেদ করলে পীর দাবীদারগন বলবে ” ধম’ গেল” । হবে চিৎকার,হবে বাহ্মনবাড়িয়া। মোল্লাদের বাড়াবাড়ি একটা বড় ধরনের ব‍্যবসা। আর সেই ব‍্যবসার হাতিয়ার কোমলমতী শিশু আর আমরা অশিক্ষিত জনগন। দেশে দেশে এই বিড়ম্বনা চলছেই। একবিংশ শতাব্দীর চ‍্যালেঞ্জ, বিজ্ঞানবোধ,সব কিছুতেই মোল্লাদের অনীহা।

কম জানা সমস‍্যা নয়।সমস‍্যা না বুঝার ইচ্ছা পোষন করা। যা বড় ধরনের অস্বস্তি,ইসলামী ভাষায় পাপ। বিজ্ঞানের অগ্রগতি,মঙ্গলে, চাঁদে মানুষের অবতরন তার সাথে ইসলামী চিন্তাবিদদের মনোজগতের পরিবর্তন তারা ইচ্ছে করেই করেনা।মনত্বাস্তিক এই ঠেঠা মালেকগন আজও ইজমা কিয়াসের সমন্বয় সাধন করে কোন বক্তব্য বিবৃতি দিতে পারছেনা। পারবেওনা কোন দিন। উল্টো বলবে ওমুক দলের কমী’দের জানাজা দেওয়া হারাম।

অবস্থা দেখে মনে হচছে তারা ইসলামের ঠিকাদার। আমরা সব তুলফুলা। বিভিন্ন সময় তাদের হাতে আমরা মুক্ত মনাদের হত‍্যা হতে দেখেছি ।
মেধা হারাতে, হারাতে আজ আমরা সামাজিক,রাষ্ট্রীক থিংকার পাচ্ছিনা।যার সুযোগ নিচ্ছে আধিপত্যবাদী রাষ্ট্র। দলে,উপদলে বিভক্ত হয়ে পরস্পরের প্রতি হিংস্র হয়ে ওঠেছি। সামান‌্য কথা কাটাকাটিতেও হত‌্যা হচ্ছে তিন-চারজন করে। বিভেদ জিইয়ে রাখার কাজটা যারা করছেন তারা আই,এস,সি আই,র,এর টাকায় ভালই আছেন।মরছি আমরা সহজ জীবনের স্বপ্ন ওয়ালারা। মৃত্যু উৎসবে মেতেছে সবাই।ভেজাল ঔষদ,ফরমালিন মাছ,সারে ভাজা মুডি,মিথাইল আর ফানি’স রঙের গুড়, পচাঁ বাশি শিশু খাদ‍্য, বাঙালিদের গ্রহন করত বাধ‍্য করা হচ্ছে বিভিন্ন ছলা কলায়। দুঃখজনক হচ্ছে সবই চলছে রাজনীতি বিদদের ম‍্যানেজ করেই। সুখ, স্বস্তি, শান্তির,ঘুম বাঙালির ভাগ‍্যে নেই।মনে হয় এ দেশে জম্ম নেওয়াটাই সাধারণ মানুষের আজম্ম পাপ….।

www.bbcsangbad24.com