এপ্রিল, ০৫,২০২১

ফারহানা আক্তার জয়পুরহাট প্রতিনিধিঃ

গৃহবধুর মেহেদী রাঙ্গা হাতের রং না শুকাতেই বিবাহের প্রায় দুই মাসের ব্যবধানে ফারহানা আক্তার জুলি (১৯) নামে এক গৃহবধুকে লাশ হতে হল নিজে স্বামীর ঘরে। দু’চোখ ভরা স্বপ্ন আর রিদয় ভরা ভারোবাসা নিয়ে প্রেমের সম্পের্ক গড়ে ওঠে প্রতিবেশী হাফিজুল ইসলামের সঙ্গে। গত ৭ই ফেব্রয়ারি উভয় পরিবারের সম্মতিক্রমে বিবাহ হয় তাদের।

সোমবার ভোরে জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার গণেশপুর গ্রাম থেকে ওই গৃহবধুর লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহতর স্বামী হাফিজুল ইসলাম জানান, রাতে খাবার খেয়ে দু’জনে বিছানায় ছুঁয়ে পড়ি। এরপর গভীর রাতে আমার স্ত্রী ঘুম থেকে উঠে বাহিরে যায় এবং কিছুক্ষণ পরে ঘরে ফিরে আসে। কোন কথা না বলে দু’জনে ঘুমাই। ভোরে ঘুম থেকে উঠে দেখতে পায় সে ঘরে তলার বাঁশের সঙ্গে গলায় উড়না পেচিয়ে ঝুলছিল। এসময় আমি চিৎকার করলে পরিবারের লোকেরা ছুঁটে এসে তার গলার ওড়না খুলে মাটিতে নামায়। এর কিছুক্ষন পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কম্পেলেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।

নিহত গৃহবধুর বাবার নাম মো. ফারুক হোসেন। তিনি এঘটনার সুষ্ঠ বিচার দাবী করেন।।

উপজেলা স্বাস্থ্য কম্পেলেক্সের সহকারী সার্জন ডাঃ নাদিয়া নাহার বলেন, হাসপাতালে পৌছানোর আগেই রোগীটি মারাযায়।

এদিকে খবর পেয়ে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল পাঁচবিবি) মো. ইসতিয়াক আলম ও থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পলাশ চন্দ্র দেব ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন।

www.bbcsangbad24.com