এপ্রিল ০৭, ২০২১,

বিবিসি সংবাদ ডেস্ক:

মা সবসময় নিজের আচল দিয়ে সন্তানকে আগলে রাখেন। রক্ষা করেন সব বিপদ-আপদ থেকে। এমনকি সন্তানকে বাঁচাতে নিজের জীবন বাজি রাখতেও পিছ পা হন না। কিন্তু বুকে জড়িয়েও ১ বছরের মেয়েকে বাঁচাতে পারলেন মা বিথী আক্তার। সন্তানকে জড়িয়েই তাই মৃত্যুকে বরণ করে নিলেন বিথী।

এমনই মর্মান্তিক ঘটনাটি ঘটেছে নারায়ণগঞ্জ শীতলক্ষ্যা নদীর কয়লাঘাট এলাকায় লঞ্চ ডুবিতে। মা বিথী ও এক বছরের শিশু আরিফার একসাথে জড়িয়ে থাকাবস্থায় মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। মা সন্তানের জড়িয়ে ধরা লাশের এ দৃশ্য দেখে কেউই চোখের পানি ধরে রাখতে পারেনি। খোদ কেঁদেছেন উদ্ধারকর্মী থেকে শুরু করে মিডিয়া কর্মীরা।

এছাড়াও এ ঘটানায় প্রাণ হারিয়েছেন বিথীর মা পাকিজা বেগমও।

সোমবার (৫ এপ্রিল) দুপুর ১টার দিকে স্বজনদের কাছে মা-মেয়ের লাশ বুঝিয়ে দেন উদ্ধারকার্মীরা। পরে ২টার দিকে তাদের লাশ নিয়ে আসা হয় মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলার খাসকান্দি রমজানবেগ গ্রামে।

এ সময় স্বজনদের কান্নায় পরিবেশ ভারী হয়ে ওঠে। পরে গোসল করানোর সময় মা ও মেয়েকে আলাদা করেন স্বজনরা।

নিহত বিথী আক্তার ঐ এলাকার আরিফ কাজির স্ত্রী। আরিফ ডেকোরেটরের লাইট মিস্ত্রির কাজ করেন। তিনি স্ত্রী, সন্তান ও শাশুড়িকে হারিয়ে এখন পাগলপ্রায়।

নিহত বিথী ও তার মেয়ে আরিফাকে দাফন করা হয়েছে বিথীর মা পাকিজা বেগমের পাশে।

প্রসঙ্গত, রোববার (৪ এপ্রিল) সন্ধ্যার কিছু আগে এসকেএল-৩ নামের একটি কোস্টার জাহাজ পেছন থেকে ধাক্কা দিয়ে অন্তত ২০০ মিটার লঞ্চটিকে টেনে নিয়ে যায়। এরপর লঞ্চটি যাত্রীসহ ডুবে যায়। আশপাশে কোনো নৌকা না থাকায় অনেকেই রক্ষা পাননি। ডুবে যাওয়া যাত্রীবাহী লঞ্চটি উদ্ধার করেছে উদ্ধারকারী জাহাজ প্রত্যয়। ঐদিন রাত থেকে মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত শিশু ও নারীসহ মোট ৩৪ লাশ উদ্ধার করা হয়েছে।

www.bbcsangbad24.com