আগস্ট,৩১,২০২১

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি:

নদী ভাঙ্গন বৃদ্ধির ফলে মুন্সীগঞ্জের টঙ্গিবাড়ী উপজেলার চৌসার গ্রামের একটি ৪০ বছরের পুরাতন মসজিদ নদীগর্ভে বিলীন হতে চলেছে।

উজান থেকে নেমে আসা ঢলের পানি টঙ্গিবাড়ী উপজেলা পদ্মা নদী দিয়ে তীব্র আকারে বয়ে যাচ্ছে। এতে নদী ভাঙ্গনও বৃদ্ধি পাচ্ছে।

টঙ্গীবাড়ী উপজেলার পূর্ব হাসাইল গ্রাম হতে দিঘীরপাড় পর্যন্ত প্রায় ৫ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে ভাঙছে প্রমত্তা পদ্মা নদী। ঘর বাড়ির পাশাপাশি একে একে বিলীন হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন সামাজিক স্থাপনা।

গত কয়েকদিনে ভাঙ্গনে কামারখাড়া ইউনিয়নের চৌসার গ্রামের প্রায় ৫০ টি পরিবারের বসতভিটা নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। বিলীন হতে চলেছে ওই গ্রামের সামাজিক মসজিদটি। বিগত কয়েক বছর ধরে মসজিদটির পূন নির্মান কাজ চলছিল। এখনো সম্পন্ন হয়নি পুরো নির্মাণ। এর মধ্যেই মসজিদটিতে ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে।

সরোজমিনে ওই এলাকায় গিয়ে দেখা যায় চৌসার মেওয়াতলা জামে মসজিদটির এক কোনের বেশ কিছু অংশের মাটি নদীতে বিলীন হয়ে গেছে। দিনদিন ভাঙ্গন বৃদ্ধি পাওয়ায় মসজিদের তলার মাটি সরে যাচ্ছে। যে কোনো মুহূর্তে মসজিদটি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে যাওয়ার শঙ্কা দেখা দিয়েছে।

ওই মসজিদের কতিপয় মোতাওয়াল্লী জানান, ৪০ বছর যাবৎ এই স্থানেই ছিল মসজিদটি। আগের ভবনটি জরাজীর্ণ হয়ে যাওয়ায় পুনরায় মসজিদটি নির্মাণ করার কাজ চলছিল। কিন্তু কাজ শেষ না হতেই নদীতে বিলীন হতে চলছে মসজিদটি।

এ ব্যাপারে টঙ্গিবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা পারভীন বলেন, ওই স্থানের নদী ভাঙ্গন কবলিত মানুষজনকে ইতিমধ্যে খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হয়েছে। তাদেরকে ঘর পুনরায় নির্মাণের জন্য নতুন টিন দেওয়া হবে। এছাড়া তাদের আর্থিক সহায়তা প্রদান করা হবে।

www.bbcsangbad24.com