দেশ ও মানুষের কথা বলে

শ্রীনগরে প্রশাসনের সাথে ড্রেজার ব্যবসায়ীদের চোর পুলিশ খেলা!

ফেব্রুয়ারী,১৫,২০২২

তুষার আহাম্মেদ,মুন্সীগঞ্জ:

শ্রীনগর উপজেলার প্রায় ১৪ টি ইউনিয়নে চলছে ড্রেজার দিয়ে ভরাট বানিজ্য । সকালে ড্রেজারের পাইপ অপসারণ করলেও আবার চালু করছে রাতে, শ্রীনগরের প্রতিটা জায়গায় এলাকার প্রভাবশালী এক শ্রেণীর অসাধু ব্যক্তি ঢাকা দোহার আন্তঃ সড়ক ভেদ করে যেমন সরকারের কোটি টাকার রাস্তা নষ্ট করছে অপর দিকে কৃষি জমি ভরাটের এ মহা উৎসব শুরু করেছে এসব ব্যক্তিরা।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, উপজেলার প্রশ্চিমে পদ্মা নদী ঘেষা বাঘড়া বাজারের প্রশ্চিমে আনু মেম্বারের ১টি, সালাম মেম্বার, জোবায়ের ১২” পাইপ বসিয়ে বুস্টার দিয়ে চরে ১টি কার্টার দিয়ে মাটি কাটে ভরাট বানিজ্য করছে ,ম্যাগনেটের দখলে রয়েছে একটি ১২” ড্রেজার,আলামিন বাজারের সামনে সামাদ মেম্বারের ১২” একটি ড্রেজার রয়েছে,বিকল্পধারার মামুনের রয়েছে ১২” ১টি,মধ্য কামারগাওয়ে রয়েছে মোশারফ মেম্বারের ভুইয়া বাড়ীর মহা সড়ক ভেদ করে ১টি,বউ বাজারে সড়ক ভেদ করে ড্রেজার ব্যবসায়ী জিন্নত মিয়ার ১২” যা নাজিম সরর্দারসহ আরো কয়েকজন,সুইট,সজিব আওয়ামী লীগ নেতা,বিকল্পধারার মামুনের রয়েছে প্রায় ৪টি ড্রেজার যা ব্যবহার হচ্ছে এতিমখানা,নতুনবাজার,বানিয়া বাড়ী এলাকায়, রাঢ়ীখালে সুইচ গেটের পাশ সড়ক ভেদ করে বিএনপির নেতা সোয়েব ১২” রয়েছে ১টি,রাঢ়ীখাল থেকে কবুতর খোলা যাওয়ার মাঝ পথে রয়েছে ৪টি লাইন হাতারপাড়ার চকে কালাম মেম্বারের ভাগনে সৈকতের, মান্দ্রায সড়ক ভেদের ফলে এজিআরডির রাস্তা প্রায় হুমকির মুখে যুবলীগ নেতা মামুন কবির,মেম্বার নাজিম সরদার ১২” রয়েছে ২টি, মাকসুদুল আলম ডাবলুর ভাগ্নে নাহিদ হোসেন শামীমের রয়েছে ১২” ১টি, কোলাপাড়ার যুবলীগ নেতা আতাহার,মুনসুরুল আলম কুতুব ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মমিন আলীর,মাইছপাড়া যাওয়া মিশনের মোড়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি পলের ১টি, তিনদোকান এলাকায় সড়ক ভেদ করে রোকন ৪একর জমি ভরাটের জন্য কৃসি জমি কেটে জমি কেটে পকেট করে বালু ভরাট করছে,ওয়াসা পর্যন্ত ড্রেজারের লাইন করেছে নবনির্বাচিত মেম্বার মাহবুব শার্হ, বাইপাসে রয়েছে সাব ড্রেজার যা মহাসড়কের পাশে বালু ফেলে ড্রেজার দিয়ে অন্যত্র ভরাট করছে বিএনপির নেতা র্পাথর ১ টি, ছাত্রলীগ নেতা ওহাদুজ্জামান রাজু,রুবেল ১টি,নজরুল মেম্বারের ১টি,আওয়ামী লীগ নেতা সোহেলের ১টি,বেজগাও সুমন সিকদারের দায়িত্বে রয়েছে মোট ১৬টি কিন্তু স্থানীয়দের দাবী প্রায় ৪০টির বেশী ড্রেজার রয়েছে তার আন্ডারে বাড়ৈগাও, কুকুটিয়াসহ প্রায় পুরো দক্ষিণ তার দখলে, হাসাঁড়া, বাড়ৈখালি থেকে মদনখালীতে রয়েছে সড়ক ভেদ করে প্রায় ২৫ থেকে ৩০টি ড্রেজার ।
সরজমিনে গিয়ে ও স্থানীয় ভাবে জানা যায় যে, সন্ধ্যার পর থেকে প্রায় সারা রাত ড্রেজারের বিকট শব্দে ঘুমানো প্রায় অসম্ভব হয়ে পরেছে,ড্রাম ট্রাক দিয়ে সারা রাত বালু আনা নেওয়া হচ্ছে এলাকাতে, সকালে উপজেলা প্রসাশন এসব ড্রেজারের পাইপ ভেঙ্গে দিলেও স্থানীয় ভাবে সবাই প্রভাবশালী হওয়ায় প্রসাশনের সাথে প্রতিদিন চোর পুলিশ খেলে ব্যবসায়ীরা
এ ব্যাপারে শ্রীনগর উপজেলা নির্বাহী অফিসার প্রণব কুমার ঘোষ জানান, আমরা প্রায় প্রতিদিন এসব ড্রেজারের পাইপ রাস্তা থেকে অপসারণ করছি,খবর পেলেই ছুটে যাচ্ছি ।

www.bbcsangbad24.com

Leave A Reply

Your email address will not be published.