দেশ ও মানুষের কথা বলে

প্রতারনা করে শত কোটি টাকা নিয়ে টংগীবাড়ির স্বপন উদাও হয়ে নারায়ণগঞ্জে আত্মগোপন

মার্চ ০১,,২০২২

নিজস্ব প্রতিনিধি:

একজন গার্মেন্টস কর্মী আজ নিজের নামের আগে পদবী লেখেন শিল্পপতি স্বপন বেপারী। স্বপন বেপারী মুন্সীগঞ্জের টংগীবাড়ি উপজেলার আড়িয়ল ইউনিয়নের ফজুশাহ মাজারের পাশে ভদ্রপাড়া গ্রামের কৃষক বারেক বেপারীর ছেলে। সে ঢাকাতে একটি গার্মেন্টেস কোম্পানীতে চাকুরী করত: বেশ কয়েক বছর যাবৎ সমাজের ধনী ও বৃত্তবান ব‌্যক্তিদের খোঁজে তাদের সাথে গার্মেন্টস ব‌্যবসার ফরমুলা দিয়ে পার্টনারে ব‌্যবসার ফাঁদ তৈরী করে নারায়নগঞ্জের ভুইগড়ে একটি অফিস ভাড়া নেয় আর পার্টনারদের বলে অত‌্যাধুনিক মেশিনপত্র ক্রয় করতে টাকা লাগবে। এভাবে বেশ কয়েকজন পার্টনারের কাছ থেকে কয়েক কোটি টাকা হাতিয়ে নেয়। টাকা নেওয়ার পর থেকে সে উদাও হয়ে যায় মোবাইল সিম পরিবর্তন করে। আর অন্তরালে হাতিয়ে নেওয়া টাকা দিয়ে গড়ে তুলে অবৈধ ব‌্যবসা, বনে যায় শিল্পপতি। তথ‌্যমতে জানাযায়,সে গাজিপুরে একটি গার্মেন্ট কোম্পানী করেছেন। এর আগে নারায়নগঞ্জের ভুইগড়েও রিফাত ইন্টার ন‌্যাশনাল নামে দেলপাড়ার চেয়ারম‌্যান সড়কে একটি সোয়েটার ফ‌্যক্টরী করেন। পরে পাওনাদার জানাতে পারে যে সে ঐখানে আছে তখনই সে সবকিছু গুটিয়ে পালিয়ে যায়। অন‌্যান‌্যদের মতো এই প্রতারনার স্বীকার হন মুন্সীগঞ্জ শহরের মাঠপাড়া এলাকার প্রবাসী আওলাদ হোসেন । প্রতারক স্বপন আওলাদের কাছ থেকেও ৩২ লক্ষ টাকা নেয় গার্মেন্টস ব‌্যবসার পার্টনারের অজুহাতে। টাকা নেওয়ার পর সে একই কায়দায় আওলাদের সাথেও প্রতারনা করে। আওলাদ তার টাকা ফেরৎ পাওয়ার জন‌্য স্বপনের গ্রামের বাড়ি যায় সেখানেও কোন কাজ না হওয়ায় স্থানীয় আড়িয়ল ইউপি চেয়ারম‌্যান এর আদালতে মামলা করিলে স্থানীয় চেয়ারম‌্যান তাহার গ্রাম‌্য আদালতে একাধিকবার ডাকার পরেও স্বপন আসেনি বিদায় চেয়ারম‌্যান অভিযোগকারীর পক্ষে প্রত‌্যায়নপত্র দেন। অবশেষে ঐ প্রতারকের অনসন্ধ‌্যান পেয়ে আওলাদ হোসেন নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার কুতুবপুর ইউনিয়নের দেলপাড়ার মীরগঞ্জ এলাকার শফিউল্লাহ শফির ৬ তলা বাড়ির ২য় তলা ফ্লাটে গিয়ে স্বপনের দেখা পায়। কিন্তু তখন স্বপন তাকে মেরে ফেলার হুমকি প্রদান কিছুসংখ‌্যক গুন্ডাসহ। নিরুপায় হয়ে সোহেল নারায়নগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার এর নিকট একটি অভিযোগ দায়ের করেন। নারয়ণগঞ্জ জেলা পুলিশের অভিভাবক পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম পিপিএম অভিযোগের আলোকে ব‌্যবস্থা গ্রহনের জন‌্য জেলা গোয়েন্দা পুলিশ ডিবি ওসি (২) এনামুল ইসলামকে দায়িত্বভার দেন । ডিবি পুলিশের ওসি এনামুল একাধিকবার চেষ্টা করার পরেও প্রতারক স্বপন পুলিশকে বৃদ্ধঙ্গুলী দেখিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। এদিকে টাকা পয়সা দিয়ে অসহায় হয়ে নিঃস্ব আওলাদ হোসেন এখন সর্বশান্ত।

www.bbcsangbad24.com

Leave A Reply

Your email address will not be published.