দেশ ও মানুষের কথা বলে

শ্রীনগরের ২৩ নং কেয়টখালী সপ্রবির নির্বাচিত ম্যানেজিং কমিটির পূর্নাঙ্গ কমিটি ঘোষনা না দিয়ে এডহক কমিটির নামে নয়ছয়!

মে,১২,২০২২

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি:

মুন্সীগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলার ৪ নং ষোলঘর ইউনিয়নের ২৩ নং কেয়টখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সারাদেশের ন্যায় ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় গত ১৩/৩/ ২০২২ ইং তারিখে। উক্ত নির্বাচনে বিদ্যালয়ের বিদ্যুৎসাহী সভাপতি হিসেবে নির্বাচনে প্রার্থীতা করেন (পুরুষ) খৈয়াগাও সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাবেক সহকারী শিক্ষক এডভোকেট জয়নাল আবেদীন বাবু তার প্রতিদন্ধি প্রার্থী (মহিলা) আফসানা আক্তার। এই দুজনকেই বিদ্যুৎসাহী হিসেবে মনোনীত করেন মুন্সীগঞ্জ ১ আসনের মাননীয় সাংসদ মাহী বি চৌধুরী এমপি। এর আগে বিগত ১২/০৩/২০২২ ইং তারিখে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাসুমা কাজল মিটিং কল করেন ২জন পুরুষ ও ২জন মহিলা অভিভাবক প্রতিনিধি সদস্য নির্বাচিত করার জন্য। উক্ত মিটিংয়ে অভিভাবক প্রতিনিধি হিসেবে প্রার্থীতা করেন মহিলা ৬ জন ও পুরুষ ২১ জন। এদের মধ্য থেকে ২ জন পুরুষ ২ জন মহিলা নির্বাচিত হন। কিন্তু সকলের উপস্থিতি থাকলেও বিদ্যুৎসাহী সভাপতি প্রার্থী (মহিলা) আফসানা আক্তার উপস্থিত ছিলেন না। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ঐদিনই উপস্থিতদের জানান আমাকে উক্ত বিদ্যালয়ের পূর্ণাঙ্গ কমিটি আগামী কালের মধ্য জমা দেওয়ার নির্দেশ রয়েছে | সেই মোতাবেক ১৩/০৩/২০২২ইং তারিখে উপস্থিত থাকার জন্য চিটি দিলে উক্ত বিদ্যালয়ের সাবেক ৩ জন সভাপতি লাল মিয়া খালাসী,শাহজালাল খালাসী,তাসের, এলাকার অভিভাবকসহ প্রায় ২/৩ শত লোকের উপস্থিতিতে পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন করা হয়। উল্লেখ্য যে উক্ত কমিটি গঠনের দিন ও বিদ্যুৎসাহী সভাপতি হিসেবে প্রার্থী আফসানা আক্তার উপস্থিত না হয়ে তার পক্ষে স্বামী আওলাদ হোসেন উপস্থিত হয়ে নির্বাচনে উক্ত পদে নিজ নাম প্রত্যাহারের জন্য প্রধান শিক্ষক বরাবরে একটি প্রত্যাহার পত্র দখিল করেন। এসময় মহিলা প্রার্থী অনুপস্থিত থাকায় অভিভাবক প্রতিনিধি ও সকলে একমত পোষন করে এডভোকেট জয়নাল আবেদীন বাবুকে উক্ত বিদ্যালয়ের বিদ্যুৎসাহী সভাপতি হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত করেন এবং ঘোষনা দেন। উক্ত কমিটিকে অত্র বিদ্যালয়ের সকল অভিভাবক ও অভিভাবক প্রতিনিধিসহ এলাকার সকলে মেনে নিলেও কিছু অসাধু কতিপয় ব্যক্তি এই কমিটির বিরোধিতা করে অপপ্রচার করছে। অসাধু ব্যক্তিদের কথা শুনে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মশিউর রহমান মামুন ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার তাদের মনগড়া মোতাবেক নির্বাচিত কমিটির তোয়াক্কা না করে এডহক কিমিটি ঘোষনা করেন। এর পর থেকে এলাকার অভিভাবক ও অভিভাবক প্রতিনিধিদের মধ্য নানা প্রশ্ন উঠেছে যে, একটি বিদ্যালয়ের সকলের সম্মতিক্রমে ভোটের মাধ্যমে নির্বাচিত কমিটিকে স্থগিত ঘোষনা না দিয়ে কি ভাবে আবার এডহক কমিটি ঘোষনা দেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার। এলাকার অভিভাবক ও অভিভাবক প্রতিনিধিদের দাবী অবিলম্বে বর্তমান নির্বাচিত কমিটি থাকলেই অত্র বিদ্যালয়ের সার্বিক উন্নয়ন ত্বরানিত হবে। এবিষয়ে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ মাসুদ ভুইয়ার সাথে মুঠোফোনে আলাপকালে তিনি বলেন, আমি চাই একটি বিদ্যালয়ে যে সার্বিক উন্নয়নের কাজ করতে পারবে সেই যোগ্য ,তাছাড়া এলাকার অভিভাবক ও অভিভাবক প্রতিনিধিরা যাকে নির্বাচিত করবে তাকেই মেনে নেওয়া উচিৎ।

www.bbcsangbad24.com

Leave A Reply

Your email address will not be published.