দেশ ও মানুষের কথা বলে

মতলব দক্ষিনে মালিক ও সাব কন্ট্রেক্টার এর গাফলতিতে ২ জন শ্রমিকের রহস্যজনক মৃত্যু

আগস্ট,২০,২০২২

ব্যুরো অফিস, মতলব দঃ চাঁদপুর

মতলব দঃ উপজেলার ৪নং নারায়নপুর ইউনিয়নের উত্তর বাড়িগাও আনোয়ার হোসেন ভূইয়ার বাড়ির পূর্ব পাশের আবুল বাশার এর ক্রয়কৃত ভূমিতে নির্মানাধিন সেইফটি টাংকির সেন্টারিং খোলতে গিয়ে বিষ্ক্রিয়া হয়ে গ্যাসের কারনে নির্মানাধীন মালিকের অবহেলার কারনে ২ জন শ্রমিক নিহত হন। নিহত কন্সট্রাকশান ফার্মের ঠিকাদার লিটন বেপারি ( ৩৮) পিতা অলিউল্লাহ বেপারি। রাসেল বেপারি ( ৩৪) পিতা আলী আর্শ্বাদ বেপারি। ওই দুই ব্যাক্তির মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে সচেতন নাগরিকদের ও সাধারন মানুষের মধ্যে চঞ্চলতা দেখা দিয়াছে। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিস মতলব দঃ থানার পুলিশ কর্মকর্তা ও ফায়ার সার্ভিস কর্মকর্তাদের কঠোর পরিশ্রমে নিহত ২ জন শ্রমিককে উদ্ধার করতে সক্ষম হন।

সরেজমীনে গিয়ে জানা যায় ৩ নং খাদেরগাও ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের পুটিয়া গ্রামের অলিউল্লাহ বেপারির বড় ছেলে মোঃ লিটন বেপারি ও ৩ নং ওয়ার্ডের গোয়ালগাভা গ্রামের আলী আর্শ্বাদ এর বড় ছেলে রাসেল বেপারি। প্রতি দিনের মতই কন্সট্রাকশানের কাজের উদ্দেশ্যে বাহির হন গত ১৯-০৮-২০২২ রোজ শুক্রবার আনুমানিক সাড়ে ৮ ঘটিকার সময় কাজের গন্তব্য স্থানে আসেন। নারায়নপুর ইউনিয়নের উত্তর বাড়িগাও আবুল বাশারের নিজ ভবনে কাজের জন্যে যান। নির্মানাধিন সেইফটি ট্যাং এর সেন্টারিং খোলার জন্য কর্মস্থলে গিয়ে পৌছেন। তারপর ভবনের মূল মালিক আবুল বাশারের উপস্থিতিতে রাসেল বেপারি সেইফটি ট্যাংকের ঢাকনা খোলেন, খোলার পর ভিতরে প্রবেশ করেন। এলাকার সূত্রে জানা যায়। নাম বলতে অনিচ্ছুক অনেকেই।রাসেলের সারা শব্দ না পেয়ে রাসেলকে উদ্ধারের জন্য ভেতরে প্রবেশ করেন লিটন বেপারি। পরবর্তিতে ঘটনাস্থলে থাকা ভবনের মালিক আবুল বাশার কাউকে ঘটনা বিষয় অবগত না করে ঘটনাস্থল থেকে উদাও হয়ে যায়। পরবর্তিতে নিহতের ঘটনাটি সমাজের মধ্যে কানাগোষা শুনা গেলে কে বা কাহারা মতলব দঃ থানা ও ফায়ার সার্ভিসকে বিষয়টি অবগত করা হলে, তাৎক্ষানিক এর মধ্যে থানা পুলিশ ইনচার্জ ফোর্স নিয়ে ও ফায়ার সার্ভিস ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন। ওই সময় আসার পর সেইফটি টাংকির ঢালাই ও কাটারের মাধ্যমে রডগুলো কেটে ভিতরে অক্সিজেনের ব্যাবস্থা করে নিহতদের উদ্ধার কার্জ সম্পূর্ন করেন। এইদিকে সেইফটি টাংকির ভেতরে ভিডিও ও ছবির ফুটেজে দেখা যায় রাসেল বেপারির ও লিটন বেপারি পরে আছে। দেখার পর পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস এর কর্মকর্তাগন যৌথ উদ্যাগে ২ ঘন্টার কঠোর পরিশ্রমের মাধ্যমে উদ্ধার করে উপরে নিয়ে আসে নিহতদের লাশ। পরবর্তিতে নিহতদের লাশগুলো নিয়ে যান মতলব দঃ থানা পুলিশ। বিশেষ সূত্রে জানা যায় ভবনের মূল মালিক আবুল বাসার পলাতক রয়েছে। এ নিয়ে এলাকাবাসীর মধ্যে নানান গুঞ্জন ও চাঞ্চলতা সৃষ্টি হয়েছে। নিহতদের ঘটনার বিষয়ে সহকারি পুলিশ সুপার ইয়াছিন আরাফাত বলেন আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি এবং লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য চাঁদপুর জেলায় প্রেরন করা হয়েছে বলে জানান। মতলব দঃ থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মহিউদ্দিন মিয়া মোবাইল মুঠোফোনে বলেন নিহতদের ময়না তদন্তের জন্যে চাঁদপুর পাঠানো হয়েছে।

www.bbcsangbad24.com

Leave A Reply

Your email address will not be published.