দেশ ও মানুষের কথা বলে

মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশের প্রেস ব্রিফিং

সেপ্টেম্বর,১৫,২০২২

আবু হানিফ রানা:

বৃহস্পতিবার ১৫ সেপ্টেম্বর বিকাল ৩ টার সময় মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে চালঞ্চকর ৩ ডাকাতি মামলার ১১ আসামী ধৃত প্রসঙ্গে জেলার প্রিন্ট ও ইলেক্টনিক্স মিডিয়ার সাথে প্রেস ব্রিফিং করেন পুলিশ সুপার   মাহফুজুর রহমান আল মামুন  বিপিএম পিপিএম।

এসময় পুলিশ সুপার প্রেস ব্রিফিং এ জানান, গত ৮-৯-২২ ইং তারিখে সন্ধ্যা অনুমানিক ৭ টা ১০ মিনিটের সময় সদর থানাধীন চরডুমুড়িয়া বাজারস্থ জুয়েলারী ব্যবসায়ী প্রবীর পাল বাড়ি ফিরার পথে তার গতিরোধ করে ৫জন ডাকাত পুলিশ পরিচয়ে তাকে মটরসাইকেল থেকে নামিয়ে হেলমেট দিয়ে মাথায় আঘাত করে মটর সাইকেলসহ নগদ দুই লক্ষ টাকা ও বিভিন্ন ধরনের ৫০ ভরি স্বর্ণ নিয়ে যায়। প্রবীর পাল মুন্সীগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে ৯-৯-২২ ইং তারিখে মুন্সীগঞ্জ থানায় একটি ডাকাতি মামলা দায়ের করেন যাহানং ১৮।

মামলা রজু করার পর পরই পুলিশ সুপার মাহফুজুর রহমান এর নির্দেশে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( ক্রাইম এন্ড অপস) আদিবুল ইসলাম ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( মুন্সীগঞ্জ সদর সার্কেল) মিনহাজ উল ইসলামের নেতৃত্বে জেলা গোয়েন্দা শাখা ও মুন্সীগঞ্জ থানার একাধিক টিম তদন্ত শুরু করে এবং বিশেষ প্রযুক্তির সহায়তায় জড়িত খলিলুর রহমানকে সনাক্ত করে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করে।

তার স্বীকারোক্তি মোতাবেক যৌত অভিযানে নারায়নগঞ্জ থেকে মোহাম্মদ আলী,শামীম বেপারী,ঢাকা থেকে আনোয়ার হোসেনকে গ্রেফতার করে প্রবীর পালের মালামাল উদ্ভার করেন। ফরিদপুর ভাঙ্গা থেকে সবি রঞ্জন নিশি ও মিঠুন কর্মকারকে গ্রেফতার করা হয়। প্রত্যকের নামে আর্ন্তজেলা ডাকাতি মামলা রয়েছে। অপর মামলার বাদী রামপালে মা জুয়েলার্স মালিক পলাশ বাড়ৈর গত ২৯-৬-২২ ইং তারিখের সংঘটিত ডাকাতির ঘটনার কথা স্বীকার করেন গ্রেফতারকৃত আসামী খলিলুর এবং একই অভিনব কৌশলে হেন্ডকাফ পরিয়ে ১০ ভরি স্বর্ণ ও ৩ লক্ষাধিক টাকা ডাকাতি। এ মামলায় জড়িত জুবায়ের আলম অরফে মহসিন মোল্লা ও নিরঞ্জন হালদারকে গ্রেফতার করা হয় সিরাজদীখান থেকে এবং মালামাল উদ্ভার করা ঢাকা থেকে।

অন্যদিকে শ্যীনগর থানার একটি ডাকাতি মামলার রহস্য উদঘাটন করা হয়েছে। গত ১২-৯-২২ শ্রীনগর থানাধীন কেয়াটখালী সংলগ্ন মাওয়া এক্সপ্রেসওয়ের পাশে সার্ভিস রোডে অজ্ঞাতনামা ৭/৮জন ডাকাত ডাকাতি করাকালে আলমগীর নামের জৈনিক ব্যক্তি ও অন্যান্য যাত্রি গাড়িসহ ডাকাতি সম্পাদিত ঘটনার একজন ডাকাতকে মৃত উদ্ভার করে পুলিশ । এবং এই মৃত ব্যক্তির ফিংগারপ্রিন্ট এর মাধ্যমে সনাক্ত করে তিনি আ: মালেক। তার নামে গাজিপুর,শ্রীপুর,গলাচিপা,পটুয়াখালীসহ ৪ টি মামলা রয়েছে। এই মামলার অভিযুক্ত আসামী কালাম বেপারী অরফে কালামকে কেরানিগঞ্জ থেকে গ্রেফতার করে তার স্বীকারোক্তিতে রফিক এবং রাকিবুল ইসলামকে কেরানীগঞ্জ এলাকা থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। তাদের শরিয়তপুরসহ বিভিন্ন জেলায় মামলা রয়েছে।

এসময়  প্রেস ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন, জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( ( ক্রাইম এন্ড অপস) আদিবুল ইসলাম ,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( মুন্সীগঞ্জ সদর সার্কেল) মিনহাজ উল ইসলাম,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( ডি এস বি ) ইয়াছিনা ফেরদৌসী,সিরাজদীখান সার্কেল মোস্তাফিজুর রহমান,ডি আই ও (১) হেলাল উদ্দিন, অফিসার ইনচার্জ ডিবি আবুল কালাম আজাদ,মুন্সীগঞ্জ সদর থানার অফিসার ইনচার্জ রকিব উজ জামানসহ ইলেক্টনিক্স,প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ।

www.bbcsangbad24.com

Leave A Reply

Your email address will not be published.